গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ১৭৪টি ইট ভাটার বিষাক্ত কালো ধোঁয়ায় নিশ্বাস নিতেও কষ্ট হতো এলাকাবাসীর। আশপাশের কয়েক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে গাছপালায় কোনো ফসল হত না। সাধারণ মানুষ শ্বাসকষ্টসহ নানা প্রকার চর্মরোগে ভুগছিল।

বিলে পাওয়া যেত না মাছ। মোট কথা জীববৈচিত্র প্রায় হারাতে বসেছিল। কিন্তু দুই বছর ধরে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় সকল ইট ভাটা বন্ধ করে দেয়ায় এলাকাবাসীর মনে এখন স্বস্তি ফিরেছে। এ সকল ইট ভাটা বন্ধ থাকার কারণে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় এখন সবুজের সমারোহ বিরাজ করছে। কৃষকের ঘরে উঠছে নতুন ধান, নানা প্রকার শাক-সবজিসহ বিভিন্ন ফসল।

গাজীপুর পরিবেশ অধিদফতর ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ২০-২৫ বছর আগে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকাসহ বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গড়ে ওঠে শত শত ইট ভাটা। সরকারি অনুমোদন নিয়ে কিংবা অনুমোদন ছাড়াই বিভিন্ন উপায়ে ভাটা মালিকরা ইট ভাটা পরিচালনা করে আসছিলেন।

media image
ছবি

এরই মধ্যে গাজীপুর সদর উপজেলার একাংশ ও টঙ্গী থানা নিয়ে গঠিত হয় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন। পরে ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ অনুসারে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ইট ভাটা নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার।

এ ব্যাপারে গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম বলেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ইট ভাটামুক্ত থাকায় এলাকাবাসী ইটভাটার দূষণ থেকে মুক্তি পেল। এতে পরিবেশ ভালো থাকবে এবং এখানে পরিকল্পিত আবাসন গড়ে উঠবে।