আঃ হামিদ : টাঙ্গাইলের মধুপুরে রপ্তানী যোগ্য শাক সবজীর উৎপাদন বৃদ্ধির পাশা পাশি রপ্তানীর পরিমান দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। মধুপুর হতে মধ্যপ্রাচ্যসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে শাক সবজি রপ্তানি হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মধুপুরের তত্ত্বাবধানে উৎপাদিত চাল কুমড়া, চিচিঙ্গা, ধুন্দল, বেগুন, পটল, পাট শাক, লাল শাক, পেপে সহ বিভিন্ন প্রকার শাক সবজি মধ্যপ্রাচ্য সহ ইউরোপের যুক্তরাজ্য, ইটালি, জার্মানি, ফ্রান্স সহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানী দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক্ষেত্রে রপ্তানীযোগ্য সবজি সটিং, গ্রেডিং, প্যাকেজিংসহ শাক সবজি মোড়কজাত করনে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এবং হর্টেক্স ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে স্থাপিত সিসিএমসি সেন্টার।

বর্তমানে এস আর এন্টারপ্রাইজ, তাসফিক ইন্টার ন্যশনাল এবং এস.আর এন্টারপ্রাইজ মধুপুর হতে বিদেশে সবজি রপ্তানী করছেন। ইতিমধ্যে প্রায় ৫ মেট্রিক টন বিভিন্ন প্রকার সবজি যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইটালী সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে রপ্তানী হয়েছে। এদিকে সবজি রফতানি কারক প্রতিষ্ঠান এস.আর এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধীকারী শাহাব উদ্দিন জানান, বালাই নাশক বিহীন এসব সবজির চাহিদা বিশ্বের বাজারে দিন দিন বৃদ্দি পাওয়ায় আমরাও আশাবাদি আগামী দিন গুলোতেও বিশ্বের বাজারে মধুপুরের বালাইনাশক বিহীন উৎপাদিত মান সম্মত এসব সবজী রপ্তানী করতে পারব বলেও তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

মধুপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাহমুদুল হাসান জানান, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তত্বাবধানে বালাইনাশক বিহীন এসব শাক সবজি বিদেশে রপ্তানী সহ দেশে এর চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় মধুপুরের সবজী চাষীগণ বালাইনাশক বিহীন এসব সবজি চাষে আগ্রহ প্রকাশ করছেন। যার ফলে মধুপুরে সবজি চাষে বালাই নাশক ব্যাবহার কমে যাচ্ছে। আর এসব সবজি চাষ করার ফলে বৈদেশিক মূদ্রা অর্জন সহ এলাকার আর্থ সামাজিক অবস্হার উন্নয়নে গুরুত্ব পূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।