স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহ নগরীর ভাটিকাশর পাদ্রি মিশন রোডে মিশনের দেয়াল ঘেঁষে ডাস্টবিনের ময়লার উদ্ভট দুর্গন্ধ শুধু এলাকা ছড়ায়নি। দুর্গন্ধ ছড়িয়েছে বিদেশ থেকে মিশনে আসা অতিথিদের নাকেও। এতে বিদেশীর কাছেও ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। হচ্ছে বদনাম। ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে ডাস্টবিনটি অবিলম্বে সরানোর জন্য সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামুল হক টিটুর কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

ময়মনসিংহ নগরীতে খ্রীস্টান সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় মিশনের দেয়াল ঘেঁষে ডাস্টবিনটি অপর পাশে দেয়াল ঘেঁষে রয়েছে কুমারী মরিয়ম বিবি গ্রটোর প্রার্থনার স্থান। উল্লেখ্য, কুমারী মরিয়ম বিবি গ্রটো ভাস্কর্যটি ১৮৮৯ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৯ সালে শতবর্ষ পালিত হয়েছে। পাশেই সিস্টারদের দ্বিতল প্রার্থনার ঘর এবং ৩টি হোস্টেল। ডাস্টবিনের ময়লার দুর্গন্ধে প্রার্থনাকারী ও হোস্টেলে বসবাসকারীদের হচ্ছে অসুস্থ, বিনষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। দুর্গন্ধে অতিষ্ট পাশাপাশের বসবাসকারীরা অবিলম্বে ডাস্টবিনটি সরানোর জন্য দাবী জানিয়েছেন।

বৃষ্টি আসলে পুরো রাস্তায় বৃষ্টির পানিতে ময়লা ছড়িয়ে পড়ে। ডাস্টবিনের বিপরীতে রয়েছে সেবা সংস্থা বাংলাদেশ কারিতাস এর কায্যালয়। এছাড়া মিশনের হলি ফ্যামেলি প্রাইমারি স্কুল ও হাইস্কুল। স্কুলের শতশত শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের নাকে রুমাল চেপে ধরে চলাচল করতে হচ্ছে।

মিশনের হলি প্রাইমারি স্কুল ও হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক সিস্টার শান্তি গমেজ জানান, ৩মাস আগে ফ্রান্স থেকে এই প্রতিষ্ঠানের প্রধান সিনিয়র সিস্টার মিশন পরিদর্শনে এসেছিলেন। তিনি ডাস্টবিনের ময়লার উদ্ভট দুর্গন্ধে বিরক্ত বোধ করেন। সিটি করপোরেশনকে বিষয়টি নজর দেয়ার কথা বলেন। প্রায়ই বিদেশ থেকে ফরেনাররা মিশন পরিদর্শনে আসেন। পঁচা দুর্গন্ধের কারণে তাদের কাছে লজ্জায় পড়তে হয়।

হোস্টেল ইনচার্জ সিস্টার সাত্বনা নংমিন ও সিস্টার কবিতা কন্তা, প্রভিন্সিয়াল সিস্টার লুর্দ মেরী, সহকারী শিক্ষক রীনা পালমা বলেন, ডাস্টবিনে আশপাশের ক্লিনিক ও হাসপাতালের বর্জ্য ও মৃত কুকুর, বিড়ালের পঁচা দেহ মারাতœক দুর্গন্ধ ছড়ায়। ড্রাস্টবিনটি নিয়মিত পরিস্কার করা হয়না। ফলে ময়লা আর্বজনা রাস্তার উপর ছড়িয়ে পড়ে পরিবেশ বিপর্যয়ের সৃষ্টি হচ্ছে।