কেন্দুয়া প্রতিনিধি : নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় সাহিতপুর এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মারামারিতে ইমরান হোসেন বাবু (২৪)ও এখলাছ উদ্দিন (৩০) আহত হয়।

পরে স্থানীয় লোকজন দুইজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চেংজানা গ্রামের শামিমের ছেলে ইমরান হোসেন বাবু (২৪) ডা: মৃত ঘোষণা করে ।

এই খবরে এলাকায় দুই গ্রামবাসীর মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকালের দিকে উপজেলার সান্দিকোনা ইউনিয়নের সাহিতপুর বাজারে অটো রিকশা ও বাইসাইকেল সাইড দেয়া নিয়ে চেংজানা গ্রামের দুই চালক ও আটি গ্রামের বাই সাইকেল চালক যুবকদের সাথে কথা কাটাকাটি এক পর্যায়ে ঝগড়া বাধে।

বিষয়টি বাজারের লোকজন মীমাংসা করে দেন। পরে আটি গ্রামের যুবকরা ফিরে গিয়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই আরো কয়েকজনকে নিয়ে এসে ওই অটো চালকদের উপর হামলা চালায়।

এতে চেংজানা গ্রামের শামিমের ছেলে ইমরান হোসেন বাবু (২৪) ও একই গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে এখলাছ উদ্দিন (৩০) আহত হয়।

পরে স্থানীয় লোকজন দুইজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা জন্য পাঠালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অটোরিকশা চালক চেংজানা গ্রামের শামিমের ছেলে ইমরান হোসেন বাবু (২৪) মারা যান। এখলাছ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ।

এ বিষয়ে কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজ জানান, আটি গ্রামের রুকন মিয়ার ছেলে সুমন মিয়াকে আটক করা হয়েছে।

এছাড়াও এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে আইন গত ব্যবস্থা নেয়া হবে।