স্টাফ রিপোর্টার : হত্যা মামালায় ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার তারাটি চরপাড়া গ্রামের রফিজ উদ্দিন হত্যা মামলায় শামসুদ্দিন (৫৫)কে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। দন্ডপ্রাপ্ত শামসুদ্দিন একই এলাকার মৃত জয়েনুদ্দিনের ছেলে।

মঙ্গলবার দুপুরে ময়মনসিংহ প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সুদীপ্তা সরকার আদেশ দেন। সেই সাথে দন্ডপ্রাপ্ত শামসুদ্দিনকে দশ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদন্ডাদেশ দেন আদালত।

আদালত পুলিশ পরিদর্শক ঝুটন বর্মণ মামলার তথ্যে জানান, ২০১৫ সালে ১০ মে দুপুরে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা তারাটি চরপাড়া গ্রামের রফিজ উদ্দিন বাশেঁর চাটাই বুনন করছিল। কাজের ফাকে গুড়ের খোরমা খেয়ে পানির জন্য শামসুদ্দিনের বাড়ির ভিতর ঢুকে রান্নাঘরে ঢুকে পানি পান করে। কেনো সে রান্নাঘরে ঢুকে পানি পান করলো এ নিয়ে শামসুদ্দিন বাক-বিতন্ডা শুরু করে। এক পর্যায়ে ধারালো শাবল দিয়ে বুকে পিঠে আঘাত করে রফিজ উদ্দিনকে। তৎক্ষনাৎ সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে মারা যায়। পালিয়ে যাওয়ার সময় শামসুদ্দিনকে ধরে ফেলে পুলিশে দেয় স্থানীয় প্রতিবেশীরা। পরে রফিজ উদ্দিনের ছেলে ফরহাদ মুক্তাগাছা থানায় শামসুদ্দিনকে আসামী করে মামলা দেয়।

মামলাটিতে ৯ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহন ও শুনানী শেষে বিজ্ঞ বিচারক অপরাধি শামসুদ্দিনের উপস্থিতিতে যাবজ্জীবন সশ্রম কাদাদন্ড এবং দশ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদন্ডাদেশ দেন।

আদালতে সরকারি পক্ষে আইনজীবি সঞ্জীব সরকার ও আসামী পক্ষে আব্দুল গফুর মামলাটি পরিচালনা করেন।