স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ঘোড়া প্রতিকের মেয়র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম ২০ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন।

শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে ‘ঐতিহ্যের ময়মনসিংহকে গতিশীল ও স্মার্ট নগরে পরিণত করার প্রত্যয় নিয়ে তিনি তিনি এ নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে এহতেশামুল আলম বলেন, দলীয় সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার প্রার্থীতার বিষয়ে অবহিত আছেন। দল প্রার্থীতা উন্মুক্ত করে দিয়েছে বলে তিনি প্রার্থী হয়েছেন। মানুষ পরিবর্তন চায়। তাই তিনি জয়ের ব্যাপারে আশা বাদী। তিনি মেয়র হলে সিটি কর্পোরেশনকে শতভাগ দূনীতি মুক্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলবেন।

২০ দফা ইশতেহার গুলো হলো স্মার্ট সিটি নির্মানে ‘সিটি এ্যাপ’ এর প্রচলন, যানজট নিরসনে দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা এবং নগরীর অভ্যন্তরে ওয়ানওয়ে রোগ বাস্তবায়ন, নগরের অভ্যন্তরে গণপরিবহনের টেকসই সমাধান, নগরের অভ্যন্তরে ট্রাক ও ভারী যানবাহন চলাচলের নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ, ড্রেনেজ ব্যবস্থা বিজ্ঞানসম্মত টেকসই উপায়ে আধুনিকায়ন, জনগণের মতামতের ভিত্তিতে হোল্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ, মাদক, চাঁদাবাজি, চুরি, ছিনতাই এবং সন্ত্রাসমুক্ত নিরাপদ ও বসবাসযোগ্য নগরী গড়ে তোলা, রেললাইনের পাশের ছোট রাস্তাগুলোকে যানবাহন চলাচলের উপযোগী করে তোলা, সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ধর্মীয় উপসনালয়ে অনুদান প্রদান, নগরীর খাল পরিষ্কারকরণ ও দখলমুক্ত করা, মশক নিধনে টেকসই পরিকল্পনা গ্রহন, প্রাচীন ময়মনসিংহের ঐতিহ্য ধারণ করার স্বার্থে জাদুঘর ও সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স গড়ে তোলা এবং ময়মনসিংহ গীতিকার ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা, নগরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে কর্মজীবি নারীদের সন্তানদের জন্য ডে-কেয়ার সেন্টার চালু করা, গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য সিটি কর্পোরেশন উপবৃত্তি চালু করা, বাণিজ্যিক ও আবাসিক এলাকায় পরিকল্পিত অগ্নি নির্বাপক যন্ত্র স্থাপন, বস্তিবাসিদের নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করা, হকারদের স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা, নগরীর পুরোনো সবুজায়ন ফিরিয়ে আনা, নগরে শিশু পার্কের ব্যবস্থা করা ও রাস্তার কুকুরদের নিয়মিত ভ্যাকসিন প্রদান, কুকুর হত্যা কঠোরভাবে বন্ধকরণ, কুকুর জন্মনিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি গ্রহন এবং অসুস্থ কুকুর-বিড়ালদের চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ।

এসময় জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি এডভোকেট এবি সিদ্দিক, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী আজাদ জাহান শাহীন, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক বুলবুল আহমেদ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শরাফ উদ্দিন বায়জীদ, মোস্তফা রায়হান অসীম, মহানগর ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক তাফসীর আলম রাহাত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।