তারাকান্দা প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলায় জমি-জমার বিরোধ নিয়ে প্রতিপক্ষকে হয়রানি করতে একের পর এক মামলা দেওয়া হচ্ছে। এমনটা অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী তোতা মিয়া।

জানা গেছে, উপজেলা রামপুর ইউনিয়নে সাদুল্লাপাড়া গ্রামের, তোতা মিয়া গং ও পাশের বাড়ির মোঃ ফয়েজ উদ্দিনদের সাথে দীর্ঘদিন যাবত জমি জমার বিরোধ নিয়ে সংঘাত চলছে। উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে একের পর এক মামলা দিয়ে হয়রানি করছেন।

তোতা মিয়া অভিযোগ করে জানান, ১৯৭৬ সালে আব্দুর রহমান'র কাছ থেকে আমার দাদা আব্বাস আলী ভূমি দলিল মূলে ক্রয় করেন। ভুলবশত দলিল ১৫২ দাগের পরিবর্তে ২৫২ লিপিবদ্ধ হয়, দলিল নাম্বার ১৫৮৫।

উক্ত বিষয় নিয়ে বিআরএস সংশোধনী জেলা ময়মনসিংহ বিজ্ঞ ফুলপুর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা চলমান আছে, মোকাদ্দমা নং- ৮৮।

ওই সকল ঘটনায়, প্রতিপক্ষ মোঃ ফয়েজ উদ্দিন গংরা ২২টি মামলা দিয়েছে এবং তার মধ্যে ফিসারিতে বিষ প্রয়োগ এর ঘটনায় তিনটি মামলা দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, তারাকান্দা থানার সাবেক অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল খায়ের ও বালিখাঁ ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল আলম রাজু ও কামারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম সরকার সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মোঃ ফয়েজ উদ্দিন গংদের জমি দিয়ে মীমাংসা করে আসেন।

ওই সকল বিষয়কে অপেক্ষা করে, অসহায় তোতা মিয়া গংদের পরিবারের উপর বারবার হামলা করেছে।

গত ১ মার্চ ফয়েজ উদ্দিন ভূমির উপর আদালতে মামলা চলমান থাকা অবস্থায় জোর করে নির্মাণাধীন কাজ শুরু করেন, এতে তোতা মিয়ারা বাঁধা দেয়। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ হয়।

২ মার্চ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তোতা মিয়া গংদের উপর চাঁদাবাজি মামলা নেয় তারাকান্দা থানা পুলিশ।

এ ব্যাপারে মোঃ ফয়েজ উদ্দিন'র সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে উনার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে তারাকান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ ওয়াজেদ আলী জানান, বিষয়টি তদন্তধীন রয়েছে।