অনলাইন ডেস্ক : দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। এরই মাঝে সবার মনে প্রশ্ন ঈদ কবে? আর এ জন্য নতুন চাঁদ দেখা নিয়ে চলছে গবেষণা। চাঁদ দেখে যেমন রোজা শুরুর কথা হাদিসে এসেছে, তেমনি চাঁদ দেখা না গেলে শাবান মাসের ৩০ দিন পূর্ণ করার কথাও উল্লেখ রয়েছে। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তোমরা চাঁদ দেখে সিয়াম (রোজা) আরম্ভ করবে এবং চাঁদ দেখে ইফতার করবে। আকাশ যদি মেঘে ঢাকা থাকে তাহলে শাবানের গণনা ত্রিশ পুরা করবে। (সহিহ বুখারি, হাদিস: ১৯০৯)

আরবি দশম মাস শাওয়ালের ১ তারিখ পবিত্র ঈদুল ফিতর উদ্যাপিত হয়ে থাকে। দীর্ঘ এক মাস রোজা থাকার পর আকাশে শাওয়ালের নতুন চাঁদের উকি যেন সর্বত্রই খুশির বার্তা ছড়িয়ে দেয়। তবে নতুন চাঁদ দেখতে পেলে বিশেষ দোয়া পড়ার কথা এসেছে হাদিসে।

হজরত তালহা ইবনে ওবায়দুল্লাহ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন নতুন চাঁদ দেখতেন তখন বলতেন-

উচ্চারণ : আল্লাহু আকবার, আল্লাহুম্মা আহিল্লাহু আলাইনা বিল আমনি ওয়াল ঈমানি ওয়াসসালামাতি ওয়াল ইসলামি ওয়াত্তাওফিকি লিমা তুহিব্বু ওয়া তারদা রাব্বুনা ওয়া রাব্বুকাল্লাহ।

অর্থ : আল্লাহ মহান, হে আল্লাহ! এ নতুন চাঁদকে আমাদের নিরাপত্তা, ইমান, শান্তি ও ইসলামের সঙ্গে উদয় কর। আর তুমি যা ভালোবাস এবং যাতে তুমি সন্তুষ্ট হও, সেটাই আমাদের তৌফিক দাও। আল্লাহ তোমাদের এবং আমাদের প্রতিপালক।’ (তিরমিজি, মিশকাত)

নতুন চাঁদকে আরবিতে বলে ‘হিলাল’। ‘হিলাল’ হচ্ছে এক থেকে তিন তারিখের চাঁদ। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখো, চাঁদ দেখে রোজা ছাড়ো, ইফতার করো বা ঈদ করো।’ যে সন্ধ্যায় আকাশে চাঁদ দেখা যায়, সে রাত হলো ‘চাঁদরাত’। আরবি চান্দ্র বছরের নবম মাস রমজান এবং দশম মাস শাওয়াল।

এ ছাড়াও রমজানের চাঁদ দেখার খবর শুনে দোয়া করা হয়।

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা সাল্লিমনি লিরমাদান, ওয়া সাল্লিম রামাদানা লি, ওয়া তাসলিমাহু মিন্নি মুতাক্বাব্বিলা। (তাবারানি)

অর্থ : হে আল্লাহ! আমাকে শান্তিময় রমজান দান করুন। রমজানকে আমার জন্য শান্তিময় করুন। রমজানের শান্তিও আমার জন্য কবুল করুন।