শ্রীবরদী প্রতিনিধি: শেরপুরের শ্রীবরদীতে মায়ের শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে হানিফ (১৭) নামে ছেলেকে আটক করে কোর্টে সোপর্দ করেছে পুলিশ। ১৭ অক্টোবর শনিবার দুপুরে পৌরশহরের তাতিহাটি পশ্চিমপাড়া এলাকা থেকে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় নিহত মা হুনুফা বেগমের বড় ভাই দুলাল মিয়া বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, তাতিহাটি পশ্চিমপাড়া এলাকার ইজারাদার সদাগড় আলী সাদার ১ ছেলে ২ মেয়ে। ছেলে হানিফ সবার বড়। কিছুদিন যাবত মায়ের কাছে মোটরসাইকেল কিনে দেয়ার বায়না ধরে আসছে। এতে মা হুনুফা বেগম রাজী না হওয়ায় গত ১১ অক্টোবর রোববার রাতে তার শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে অগ্নিদগ্ধ হয় হুনুফা বেগম। পরে বাড়ির লোকজন হুনুফাকে শেরপুর সদর হাসপাতাল ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে রেফার করে। সেখানে ১৬ অক্টোবর শুক্রবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হুনুফা বেগম মারা যায়। এ ব্যাপারে নিহত হুনুফা বেগমের বড় ভাই শেরপুর চকপাঠক এলাকার বাসিন্দা দুলাল মিয়া বাদী শনিবার ছেলে হানিফের বিরুদ্ধে শ্রীবরদী থানায় মামলা দায়ের করেন।

এব্যাপারে শ্রীবরদী থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রুহুল আমিন তালুকদার বলেন, ঘটনার জড়িত অভিযোগে আটক করে হানিফকে কোর্টে সোপর্দ করা হয়েছে। ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।